ঢাকা, সোমবার, ৩০শে নভেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ, ১৫ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
ঢাকা, সোমবার, ৩০শে নভেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ, ১৫ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

সাবেক ডেপুটি স্পিকার কর্নেল (অব.) শওকত আলী আর নেই!

সাবেক ডেপুটি স্পিকার ও শরীয়তপুর-২ আসন থেকে বার বার নির্বাচিত সাবেক এমপি কর্নেল অবসরপ্রাপ্ত শওকত আলী আর নেই!

 

 

হাসপাতাল ও পরিবার সূত্রে জানা যায় আজ সোমবার (১৬ নভেম্বর ২০২০) সকাল সাড়ে নয়টায় সম্মিলিত সামরিক হাসপাতাল পিএমএইচ এ তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। তিনি বেশ কিছুদিন যাবৎ কিডনি, ডায়াবেটিস, উচ্চ রক্তচাপ, হৃদরোগ ও নিউমোনিয়া রোগে আক্রান্ত হয়ে ঢাকার সম্মিলিত সামরিক হাসপাতাল সিএমএইচ এ নিবিড় পর্যবেক্ষণে ছিলেন এবং চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৮৫ বছর। তিনি তার এক মেয়ে দুই ছেলে ও নাতি-নাতনিসহ অসংখ্য ভক্ত গুণগ্রাহী রেখে গেছেন। তার বড় ছেলে ফিরোজ শওকত আলী, তিনি অস্ট্রেলিয়া প্রবাসী। ছোট ছেলে ডাক্তার খালেদ শওকত আলী, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির প্রেসিডিয়াম সদস্য ও তার মেয়ে মেরিনা শওকত আলী।

 

 

পরিবার সূত্রে জানা যায় তাকে শরীয়তপুরের নড়িয়ায় তার নিজ বাড়ি স্বাধীনতা ভবন এ সমাধীত করা হবে।

 

কর্ণেল (অব:) শওকত আলী’র জন্ম ও প্রারম্ভিক জীবনঃ
কর্ণেল (অব.) শওকত আলী এমপি ১৯৩৭ সালের ২৭ জানুয়ারি শরীয়তপুর জেলার নড়িয়া উপজেলাধীন লোনসিং বাহের দীঘিরপার গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতার নাম মুন্সী মোবারক আলী এবং মাতার নাম মালেকা বেগম।
১৯৬৯ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এল.এল.বি ডিগ্রী লাভ করেন। তিনি ১৯৭৬ সালে বাংলাদেশ বার কাউন্সিলের সনদপ্রাপ্ত হন এবং ১৯৭৮ সালে সুপ্রীমকোর্ট বার এসোসিয়েশনের সদস্যপদ লাভ করেন।

 

কর্মজীবনঃ
কর্ণেল শওকত আলী ২৪ জানুয়ারি ১৯৫৯ তারিখে পাকিস্তান সেনাবাহিনীর অর্ডন্যান্স কোরে কমিশন লাভ করেন। পেশাগত দক্ষতা বিবেচনা করে তাকে করাচির নিকটবর্তী মালির ক্যান্টনমেন্টে অর্ডন্যান্স স্কুলের প্রশিক্ষক হিসেবে নিয়োগ করা হয়।

 

 

তিনি রাষ্ট্র বনাম শেখ মুজিবুর রহমান এবং অন্যান্য মামলার (যা আগরতলা মামলা নামে সমধিক পরিচিত) ২৬নং অভিযুক্ত ছিলেন। ষাটের দশকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে সশস্ত্র পন্থায় বাংলাদেশকে স্বাধীন করার জন্য পাকিস্তান সশস্ত্র বাহিনীর বাঙালি অফিসার, সৈনিক, প্রাক্তন সৈনিক, বেসামরিক সরকারি কর্মকর্তা ও চাকুরিজীবী, ব্যবসায়ী রাজনৈতিক নেতা-কর্মীর সমন্বয়ে যে বিপ্লবী পরিষদ গঠিত হয়েছিল, কর্নেল শওকত আলী (তৎকালীন ক্যাপ্টেন) তার সদস্য ছিলেন। তিনি উক্ত মামলায় মালির ক্যান্টনমেন্ট থেকে ১০ জানুয়ারি ১৯৬৮ তারিখে গ্রেপ্তার হন। তিনি আগরতলা মামলার অভিযুক্ত হিসেবে ১৯৬৮-৬৯ সালে বঙ্গবন্ধুর সাথে প্রায় ১৩ মাস কারাগারে ছিলেন। ১৯৬৯ সালে বাঙালি জাতির ঐতিহাসিক গণ-বিস্ফোরণের মুখে পাকিস্তান সরকার মামলাটি প্রত্যাহার করতে বাধ্য হয়। বঙ্গবন্ধু এবং কর্নেল শওকত আলীসহ অভিযুক্তগণ ২২ ফেব্রæয়ারী ১৯৬৯ তারিখে ঢাকা ক্যান্টনমেন্টের বন্দীশালা থেকে মুক্তিলাভ করেন। এরপর পাকিস্তান সেনাবাহিনী থেকে ১৯৬৯ সালে তাকে বাধ্যতামূলক অকাল অবসর দেয়া হয়।

 

তিনি ১৯৭১ সালে সক্রিয়ভাবে মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করেন। রণাঙ্গনে প্রিয় মাতৃভূমিকে রক্ষায় হানাদারবাহিনীর বিরুদ্ধে রেখেছেন রীরত্বপূর্ণ অবদান রাখেন। প্রথমে মাদারীপুর এলাকার কমান্ডার ছিলেন। পরে ২ নম্বর সেক্টরের অধীনে সাব-সেক্টরের কমান্ডার তথা ফরিদপুর কোম্পানীর স্টুডেন্ট কোম্পানীর কমান্ডার এবং প্রশিক্ষণ কর্মকর্তা ছিলেন। তিনি মুজিবনগরস্থ সশস্ত্রবাহিনীর সদর দপ্তরের স্টাফ অফিসারের দায়িত্ব পালন করেন। মুক্তিযুদ্ধের পর বঙ্গবন্ধুর নির্দেশে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীতে যোগদান করেন এবং বাংলাদেশ সেনাবাহিনীকে গড়ে তোলার ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখেন।

 

১৯৭৫ সালে বাংলাদেশের শত্রুদের দ্বারা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান নিহত হওয়ার পর তাকে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী থেকে পুণরায় অকাল অবসর দেয়া হয়। অবসরের সময় তিনি কর্ণেল পদে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর সদর দপ্তরে অর্ডন্যান্স সার্ভিসেসের পরিচালক (ডিওএস) ছিলেন।

 

অতপর তিনি ১৯৭৭ সালে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগে যোগদান করেন এবং ১৯৭৯ সালে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের সদস্য নির্বাচিত হন।

 

তিনি বঙ্গবন্ধু পরিষদের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা এবং এই সংগঠনের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য হন। প্রজন্ম-৭১ এর জন্মলগ্ন থেকে এই সংগঠনের সাথে ঘনিষ্ঠভাবে জড়িত এবং বর্তমানে এর প্রধান উপদেষ্টা। তিনি আফ্রো-এশীয় গণসংহতি সংস্থা (আপসো) এর কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য এবং বিশ্ব শান্তি পরিষদ বাংলাদেশ শাখার উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য ছিলেন। তিনি মুক্তিযোদ্ধা সংহতি পরিষদের প্রতিষ্ঠাতা আহ্বায়ক ছিলেন এবং বর্তমানে এই সংগঠনের চেয়ারম্যান। তিনি ১৯৭৮ সালে তিন বছরের জন্য ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সিনেট সদস্য নির্বাচিত হয়েছিলেন।

 

 

কর্ণেল শওকত আলী ১৯৭৯ সালে দ্বিতীয় জাতীয় সংসদের সদস্য নির্বাচিত হন এবং ত্রাণ ও পুনর্বাসন মন্ত্রণালয় সংক্রান্ত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। উল্লেখ্য যে, দ্বিতীয় জাতীয় সংসদে তিনি আওয়ামী লীগ সংসদীয় দল তথা বিরোধী দলের হুইপ হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

 

 

১৯৮২ সালের মে মাস থেকে ১৯৮৩ সালের সেপ্টেম্বর পর্যন্ত প্রায় ১৬ মাস স্বৈরাচারী শাসক হুসাইন মুহাম্মদ এরশাদের শাসনামলে কারাবরণ করেন।

 

১৯৯১ সালে পঞ্চম জাতীয় সংসদের সদস্য নির্বাচিত হন এবং বেসরকারি সদস্যদের বিল এবং বেসরকারি সদস্যদের সিদ্ধান্ত প্রস্তাব সম্পর্কিত কমিটির সভাপতি এবং নৌ-পরিবহন মন্ত্রণালয় সংক্রান্ত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি নির্বাচিত হন। এছাড়া ঐ সংসদে পিটিশন কমিটি, সরকারি হিসাব কমিটি এবং প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় সংক্রান্ত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য নির্বাচিত হন।
জুন ১৯৯৬ সালের সপ্তম ও ২০০১ সালে অষ্টম সংসদের তিনি পুণরায় সদস্য নির্বাচিত হন। যেখানে তিনি প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় সংক্রান্ত সংসদীয় স্থায়ী কমিটি এবং বেসরকারি সদস্যদের বিল এবং বেসরকারি সদস্যদের সিদ্ধান্ত প্রস্তাব সম্পর্কিত কমিটির সদস্য নির্বাচিত হন।

 

২০০৮ সালের ২৯ ডিসেম্বর তারিখে অনুষ্ঠিত সাধারণ নির্বাচনে নবম সংসদের সদস্য নির্বাচিত হন এবং ২০০৯ সালের ২৫ জানুয়ারী তিনি সর্বসস্মতিক্রমে বাংলাদেশ জাতীয় সংসদের ডেপুটি স্পীকার নির্বাচিত হন। তিনি ২২ মার্চ ২০১৩ হতে ৩০ এপ্রিল ২০১৩ পর্যন্ত জাতীয় সংসদের স্পীকারের দায়িত্ব পালন করেন। ২০১৪ সালের দশম জাতীয় সংসদেও তিনি সাংসদ নির্বাচিত হয়েছিলেন। ২০০৩ সালে বিএনপি-জামাত জোট সরকারের সময় তাকে পূনরায় কারারুদ্ধ করা হয়।

 

৫ জানুয়ারি ২০১৪, তিনি পূনরায় দশম জাতীয় সংসদের সদস্য নির্বাচিত হন। বর্তমানে তিনি সরকারি প্রতিষ্ঠান সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতির দায়িত্ব পালন করছেন।

 

পুরস্কার ও সম্মাননাঃ
তিনি রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি এবং বাংলা একাডেমীর আজীবন সদস্য। মুক্তিযুদ্ধে বিশেষ অবদানের জন্য আঞ্জু মোনোয়ারা মেমোরিয়াল ফাউন্ডেশন কর্তৃক ডক্টর মুহম্মদ শহীদুল্লাহ্ স্বর্ণপদকপ্রাপ্ত হন। দেশের প্রতি তার অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ মাদার তেরেসা রিসার্চ কাউন্সিল কর্তৃক মাদার তেরেসা গোল্ডমেডেল লাভ করেন।


error: Content is protected !!