ঢাকা, শুক্রবার, ২৬শে ফেব্রুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ১৩ই ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
ঢাকা, শুক্রবার, ২৬শে ফেব্রুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ১৩ই ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

চলে গেলেন কিংবদন্তি অভিনেতা এটিএম শামসুজ্জামান

কিংবদন্তী অভিনেতা এটিএম শামসুজ্জামান মারা গেছেন (ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)। শনিবার সকাল ৯টার দিকে সূত্রাপুরের নিজ বাসভবনে তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেছেন। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বলে তার মেয়ে কোয়েল আহমেদ।

মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৮০ বছর।

বুধবার (১৭ ফেব্রুয়ারি) সকালে তাকে পুরান ঢাকার আজগর আলী হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল। হাসপাতালে ডা. আতাউর রহমান খানের তত্ত্বাবধানে ছিলেন জনপ্রিয় এ অভিনেতা। শুক্রবার বিকেলে তাকে হাসপাতাল থেকে বাসায় নিয়ে যাওয়া হয়েছিল।

সকল গুজবকে পেছনে ফেলে আজ সত্যি সত্যিই অভিনেতা এটিএম শামসুজ্জামানের আজ সকালে শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেছেন ১৯৪১ সালের ১০ই সেপ্টেম্বর জন্ম নেওয়া এই অভিনেতা।

অভিনেতা এ টি এম শামসুজ্জামান কে শ্বাসকষ্টজনিত সমস্যা নিয়ে গত বুধবার বিকেলে পুরান ঢাকার আজগর আলী হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়।

বাংলাদেশের চলচ্চিত্রের কিংবদন্তি অভিনেতা এটিএম শামসুজ্জামান। শুধু চলচ্চিত্রেই নয়, টিভি পর্দায়ও সমানভাবে জনপ্রিয় তিনি। এছাড়া একাধারে তিনি নির্মাতা, চিত্রনাট্যকার, সংলাপ রচয়িতা ও গল্পকার।

বরেণ্য এই অভিনেতা কয়েক বছর ধরে অসুস্থ, কয়েক দফায় তাকে হাসপাতালে যেতে হয়েছে। বেশ কয়েকবার মৃত্যুর গুজবও উঠেছিল তাকে নিয়ে।

কৌতুক অভিনেতা হিসেবে চলচ্চিত্র জীবন শুরু করলেও ১৯৬৫ সালে ভিন্ন ধারার অভিনেতা হিসেবে চলচ্চিত্রে আগমন তার। ১৯৭৬ সালে চলচ্চিত্র পরিচালক আমজাদ হোসেনের ‘নয়নমণি’ চলচ্চিত্রে খলনায়কের চরিত্রে অভিনয় করে আলোচনায় আসেন। সে ধারাবাহিকতায় একের পর এক চলচ্চিত্রে অভিনয় করেন এই কিংবদন্তি। স্বীকৃতি হিসেবে পেয়েছেন কোটি দর্শকের ভালোবাসা আর পাঁচবার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার।

 

২০১৭ সালে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারে আজীবন সম্মাননা পান এ টি এম শামসুজ্জামান। এ পর্যন্ত পাঁচবার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পেয়েছেন। শিল্পকলায় অবদানের জন্য ২০১৫ সালে পেয়েছেন রাষ্ট্রীয় সম্মাননা একুশে পদক।


error: Content is protected !!