ঢাকা, শনিবার, ২২শে জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ৮ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
ঢাকা, শনিবার, ২২শে জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ৮ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ডিজিটালে হয়রানি মুক্ত ভূমি সেবা

শরীয়তপুর প্রতিনিধি : কোন নগদ লেনদেন ছাড়াই সম্পূর্ণ অনলাইন ভিত্তিক সেবা নিশ্চিতে শরীয়তপুরের নড়িয়ায় ২২ থেকে ২৮ মে পর্যন্ত সপ্তাহব্যাপী ভূমিসেবা সপ্তাহ শুরু হয়েছে।

 

আজ সোমবার সকাল ১১টায় নড়িয়া উপজেলা ভূমি অফিস চত্বরে ভূমিসেবা সপ্তাহ বুথ এর উদ্বোধন করেন উপজেলা চেয়ারম্যান একেএম ইসমাইল হক ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শংকর চন্দ্র বৈদ্য।

 

এর আগে উপজেলা পরিষদের সামনে থেকে একটি র‌্যালি বের করা হয়। এসময় উপজেলা পর্যায়ের উর্দ্ধতন কর্মকর্তাগন উপস্থিত ছিলেন। ভূমি সপ্তাহের এ সেবা জেলার ৬ উপজেলা ও ইউনিয়ন ভূমি অফিসে সমূহেও চলমান থাকবে। উপজেলা ভূমি অফিসে ১টি স্টলের মাধ্যমে প্রতিদিন সকাল ৯ টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত এখান থেকে ভূমি সেবা প্রত্যাশিরা অনলাইনের মাধ্যমে ভূমি উন্নয়ন কর, ই—নামজারি, খতিয়ান, জমির ম্যাপ, জলমহলের আবেদ, ভূমি বিষয়ক অভিযোগ সহ সকল ধরনের সেবা গ্রহণ করতে পারবেন।

 

এ সময় উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ পারভেজ এর সঞ্চালায় উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান একেএম ইসমাইল হক, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শংকর চন্দ্র বৈদ্য, উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা ইকবাল মনসুর, উপজেলা খাদ্য গুদামের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ হাবিবুর রহমান, উপজেলা হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তা হেলাল উদ্দিন, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আহসানুজ্জামান খোকন, মোক্তারের চর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন বাদশা শেখ, ভোজেশ্বর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শহিদুল ইসলাম সিকদার, ভূমখাড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আলমগীর হোসেন,  ঘড়িসার ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুর রব খান, চমটা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নিজাম উদ্দিন সহ ইউনিয়ন পরিষদের উদ্যোক্তা বৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

 

নড়িয়া ভূমি অফিসে নামজারি নিতে আশা রোজিনা আক্তার বলেন, ডিজিটালে হয়রানি মুক্ত হয়েছে ভূমি সেবা। আগে ছয় মাস নয় মাস বছর পার হয়ে যেত একটি নামজারি বা ভূমি সেবা পেতে। প্রধানমন্ত্রী আর ভূমি মন্ত্রণালয়ের সদিচ্ছায় সেই নামজারি এখন আমরা পাচ্ছি এক সপ্তাহ বা দশ দিনের মধ্যে। আমি গত ১৬ মে -২০২৩ তারিখে একটি নামজারের জন্য আবেদন করেছি আজ এক সপ্তাহের মাথায় সেই নামজারি খতিয়ান হাতে পেলাম। আমি আন্তরিকভাবে খুশী এবং প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানাচ্ছি।

 

নড়িয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শংকর চন্দ্র বৈদ্য বলেন, সকরকারের ডিজিটালাইজেশনের অন্যতম হচ্ছে ভূমি সেবা ডিজিটালাইজেশন। এর ফলে কোন নগদ লেন—দেন ছাড়াই ভূমিসেবা গ্রহীতারা কোন সময় ক্ষেপন ছাড়া ও হয়রানিমুক্তভাবে ইউনিয়ন ভূমি অফিস থেকে স্বচ্ছন্দে সেবা নিতে পারছেন। আমরা আশা করছি সময়ের ব্যবধানে স্ব—শরীরে উপস্থিত না হয়েও অনলাইনের মাধ্যমে বিভিন্ন সরকারি সেবা গ্রহণ করতে পারবেন। এতে করে সময় সাশ্রয়ের পাশাপাশি সাধারণ নাগরিকদের অর্থ ব্যয় ও অনেক কমে আসবে।


error: Content is protected !!