ঢাকা, বুধবার, ২১শে এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ৮ই বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
ঢাকা, বুধবার, ২১শে এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ৮ই বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

পাকিস্তানের বিরুদ্ধে ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা দেওয়ায় খেপলেন ব্রিটিশ এমপি

করোনাভাইরাসের কারণে পাকিস্তানের ওপর ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা দেওয়ায় ব্রিটিশ সরকারের সমালোচনা করেছেন দেশটির এমপি নাজ শাহ। তিনি বলেন, এটি সচেতন ও জ্ঞানগতভাবে বৈষম্যমূলক পদক্ষেপ।

 

ব্রিটিশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডমিনিক রবের কাছে একটি চিঠিতে এমন দাবি করেন ব্রাডফোর্ড ওয়েস্ট থেকে নির্বাচিত এমপি নাজ শাহ। পাকিস্তানকে কেন নিষেধাজ্ঞার তালিকায় রাখা হয়েছে, তিনি তার ব্যাখ্যা চেয়েছেন।-খবর ডনের

 

নাজ শাহ বলেন, ফ্রান্স, ভারত ও জার্মানির তুলনায় পাকিস্তানের আক্রান্ত হার বাস্তবিকভাবেই অনেক কম।

 

প্রশ্ন রেখে যুক্তরাজ্যের এই আইনপ্রণেতা বলেন, কোন বৈজ্ঞানিক তথ্যের ওপর ভিত্তি করে এমন সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে? ফ্রান্স, জার্মানি ও ভারতের তুলনায় পাকিস্তানের আক্রান্ত হওয়া সংখ্যা খুবই কম।

 

তিনি বলেন, করোনার দক্ষিণ আফ্রিকার ধরন নিয়ে ফ্রান্সের মতো পাকিস্তানে তেমন উদ্বেগ নেই। ফ্রান্স, জার্মানি ও ভারতকে কেন নিষেধাজ্ঞার তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করা হয়নি?

 

এই আইনপ্রণেতার মতে, পাকিস্তানকে নিষেধাজ্ঞার তালিকায় অন্তুর্ভুক্তকরণ রাজনৈতিক সিদ্ধান্ত, কোনো উপাত্তের ওপর ভিত্তি করে এমন সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়নি।

 

বাংলাদেশ, পাকিস্তান, ফিলিপাইন ও কেনিয়া থেকে যুক্তরাজ্যে প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা আগামী সপ্তাহ থেকে কার্যকর হতে যাচ্ছে। করোনাভাইরাসের নতুন ধরনের প্রাদুর্ভাবের পর এসব দেশকে ব্রিটেনের কালোতালিকায় অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে।

 

যেসব আন্তর্জাতিক ভ্রমণকারী আগের ১০ দিন এসব দেশ থেকে কিংবা এসব দেশের মধ্য দিয়ে ভ্রমণ করবেন, তারা আগামী ৯ এপ্রিল থেকে ব্রিটেনে প্রবেশ করতে পারবেন না।

 

দেশটির সরকারি কর্মকর্তাদের বরাতে বিবিসি এমন খবর দিয়েছে।

 

ব্রিটিশ ও আইরিশ পাসপোর্টধারী কিংবা ব্রিটিশ অধিবাসীদের ক্ষেত্রে এই নির্দেশের ব্যতিক্রম হবে। কিন্তু সরকারি অনুমোদিত হোটেলে ১০ দিনের কোয়ারেন্টিনের জন্য তাদের অর্থ পরিশোধ করতে হবে।

 

তাদের অবস্থানকালে দুটি করোনা পরীক্ষায় অংশ নিতে হবে। একটি পরীক্ষায় নেগেটিভ আসার অর্থ এই নয় যে, তাদের কোয়ারেন্টিনের মেয়াদ কমিয়ে দেওয়া হবে।

 

ব্রিটিশ পরিবহন দপ্তর জানায়, করোনার দক্ষিণ আফ্রিকার ধরনসহ বিভিন্ন ধরনের প্রকোপের ঝুঁকি রোধে এই ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়েছে।

 

প্রায় ৪০ দেশকে ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞায় রেখেছে ব্রিটেন। নিষেধাজ্ঞায় তালিকায় দেশগুলো—

মধ্যপ্রাচ্যে— ওমান, কাতার, সংযুক্ত আরব আমিরাত।

 

আফ্রিকা— অ্যাঙ্গোলা, বতসোয়ানা, বুরুন্ডি, কেপ ভারডি, কঙ্গো, ইসোয়াতিনি, ইথিওপিয়া, লেসেথো, মালাউই, মোজাম্বিক, নামিবিয়া, রুয়ান্ডা, সিসিলি, সোমালিয়া, দক্ষিণ আফ্রিকা, তাঞ্জানিয়া, জাম্বিয়া ও জেম্বাবুয়ে

এশিয়া— বাংলাদেশ, পাকিস্তান ও ফিলিপাইন

 

দক্ষিণ আমেরিকা— আর্জেন্টিনা, বলিভিয়া, ব্রাজিল, চিলি, কলোম্বিয়া, ইকুয়েডর, ফ্রান্স, গিনি, গায়ানা, পানামা, প্যারাগুয়ে, পেরু, সুরিনাম, উরুগুয়ে ও ভেনিজুয়েলা।

কোনো বিশেষ কারণ ছাড়া এসব দেশের নাগরিকরা ব্রিটেনে প্রবেশ করতে পারবে না।


error: Content is protected !!