ঢাকা, সোমবার, ১৫ই এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ২রা বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
ঢাকা, সোমবার, ১৫ই এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ২রা বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

‘নির্বাচনে পক্ষপাতিত্ব করলে দেশে নতুন সংকট সৃষ্টি হতে পারে’

ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের আমির ও চরমোনাই পীর মুফতি সৈয়দ মুহাম্মদ রেজাউল করিম বলেছেন, নির্বাচন আয়োজন ও পরিচালনায় নির্বাচন কমিশনকে অবশ্যই লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড তৈরি করে তা নিশ্চিত করতে হবে। এক্ষেত্রে কোনো রকম পক্ষপাতিত্ব করা হলে দেশে নতুন সংকট সৃষ্টি হতে পারে। আমরা আশা করি নির্বাচন কমিশন এই ভোটের (সিটি নির্বাচন) মাধ্যমে জনগণের আস্থা তৈরি করে নতুন কোনো সংকট সৃষ্টি করবে না।

মঙ্গলবার (২৩ মে) বিকেলে খুলনার সৈয়দ ফজলুল করিম (রহ.) ফাউন্ডেশনে আঞ্চলিক কর্মী সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। এতে সভাপতিত্ব করেন দলের খুলনা মহানগর সভাপতি ও কেসিসি নির্বাচনে হাতপাখার মেয়র প্রার্থী হাফেজ আব্দুল আউয়াল। সঞ্চালনা করেন খুলনা মহানগর সেক্রেটারি মুফতি ইমরান হুসাইন।

 

চরমোনাই পীর বলেন, ভোট যেমন একটি পবিত্র আমানত, তেমনি একটি সিটি করপোরেশনের মেয়র পদটিও গুরুত্বপূর্ণ। সেই কারণে জনগণের আমানত রক্ষা করে দুর্নীতি-দুঃশাসনমুক্ত পরিকল্পিত নগরী গড়তে একজন দ্বীনদার আল্লাহ ভীরু মানুষকে নির্বাচিত করা সব শান্তিকামী নাগরিকের কর্তব্য। এই আমানত রক্ষা ও কর্তব্য পালনে আসন্ন কেসিসি নির্বাচনে হাতপাখা প্রতীকে ভোট দিয়ে হাফেজ মাওলানা আব্দুল আউয়ালকে বিজয়ী করতে খুলনা সিটি করপোরেশন এলাকার জনসাধারণের প্রতি আহ্বান জানাই।

কর্মীদের উদ্দেশে তিনি বলেন, হাতপাখা প্রতীক নিয়ে এখনই মানুষের দ্বারে দ্বারে নেমে পড়ুন। মানুষের মন জয় করুন। জনগণের সেবা করুন। দেশের যে কোনো কল্যাণে ঝাঁপিয়ে পড়ুন। হাতপাখা হলো শান্তির প্রতীক। শান্তির প্রতীক নিয়ে জনগণের কাছে আগামীর শান্তির বার্তা পৌঁছে দিন। আমরা একটি মডেল রাষ্ট্র কায়েম করতে চাই। যেখানে দুর্নীতি থাকবে না, চাঁদাবাজি, খুন, গুম থাকবে না। মানুষ শান্তিতে বসবাস করবে।

সম্মেলনে বিশেষ অতিথি ছিলেন দলের প্রেসিডিয়াম সদস্য অধ্যাপক আশরাফ আলী আকন, অধ্যাপক মাহবুবুর রহমান ও খুলনা জেলা সভাপতি মাওলানা আব্দুল্লাহ ইমরান।

 

সম্মেলনে আরও বক্তব্য দেন ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের খুলনা মহানগর সহ-সভাপতি আলহাজ মুফতি আমানুল্লাহ , ইসলামী আন্দোলনের খুলনা মহানগরের কেসিসি নির্বাচন পরিচালনা কমিটির প্রধান পরিচালক মো. নাসির উদ্দিন, সমন্বয়নকারী মুফতি ইমরান হুসাইন, সহ- সমন্বয়কারী হাফেজ আসাদুল্লাহ গালিব, নির্বাচনী প্রধান এজেন্ট শেখ হাসান ওবায়দুল করিম, যুব আন্দোলনের কেন্দ্রীয় নেতা এম এ হাসিব গোলদার অর্থ সমন্বয়নকারী আবু গালিব, সহ-সম্বয়নকারী রবিউল ইসলাম তুষার, মিডিয়া সমন্বয়কারী আব্দুল্লাহ আল নোমান, এসএম শাহীন হোসেন, ফেরদৌস গাজী সুমন, মো. সাইফুল ইসলাম, মঈন উদ্দিন, আব্দুল্লাহ আল-মামুন, এমএ সাদী, এসএম আবুল কালাম আজাদ, মো. ইব্রাহিম খান, মুফতি আব্দুর রহমান মিয়াজী, মো. ইমরান হোসেন মিয়া, মো. আব্দুর রশিদ, মো. আকবার আলী পাঠান, মাহাদী হাসান মুন্না প্রমুখ।


error: Content is protected !!