ঢাকা, বুধবার, ১২ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ২৯শে বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
ঢাকা, বুধবার, ১২ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ২৯শে বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

তামিম-মুশফিকদের ভাগ্যে পরাজয়ের হাতছানি!

কপাল লিখন স্পষ্টতই পড়া যাচ্ছে। সেখানে খুব বেশি আশার বাণী নেই বাংলাদেশের জন্য। ৪৩৭ রানের প্রায় অসম্ভব লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে গতকালই ইনিংসের অর্ধেকটা শেষ মমিনুল হকদের। তাই আজ ম্যাচ বাঁচানোর জন্য পুরো দিন ব্যাট করার চেয়ে জয়ের জন্য বাকি ২৬০ রান করে ফেলা অপেক্ষাকৃত সহজ। যদিও কাজটা ম্যাচ বাঁচানোর মতোই কঠিন।

 

লক্ষ্য তো ধরাছোঁয়ার বাইরেই, হারও তাই অনেকটা নিশ্চিত। দেখার ছিল কেবল, লড়াই কতটা করতে পারে বাংলাদেশ। সেখানেও অবস্থা তথৈবচ। ৪৩৭ রানের বিশাল লক্ষ্যে খেলতে নেমে চতুর্থ দিন শেষে বাংলাদেশের রান ৫ উইকেটে ১৭৭। অলৌকিক কিছু না ঘটলে ক্যান্ডি টেস্টে বাংলাদেশের একমাত্র অপেক্ষা বড় পরাজয় এটা নিশ্চিত। এখন দেখার পরাজয়ের ব্যবধানটা কতো কমানো যায়।

 

আলেকস্বল্পতায় চতুর্থ দিনের খেলা ১২ ওভার আগেই শেষ হয়, ম্যাচ গড়ায় পঞ্চম দিনে। শেষ দিনে বাংলাদেশের প্রয়োজন ২৬০ রান। এই লক্ষ্য তাড়া করা তো বহুদূর, প্রথম পাঁচ ব্যাটসম্যানকে হারিয়ে ফেলা দলের জন্য টিকে থাকাও কঠিন।

 

ব্যাটিং অর্ডারের প্রথম পাঁচ জনই থিতু হন, পেরিয়ে যান ২০। কিন্তু কেউ যেতে পারেননি ফিফটি পর্যন্ত। প্রতিটি জুটি ৩০ ছুঁয়েও কোনোটিতেই হয়নি পঞ্চাশ। দুই দফায় জীবন পেয়ে, অনেক ঝুঁকি নিয়ে শেষ পর্যন্ত ৪০ রানে আউট হওয়া মুশফিকুর রহিম দলের সর্বোচ্চ স্কোরার। বাকিদের মধ্যে তামিম ইকবাল ও নাজমুল হোসেন শান্ত আউট হন দারুণ ডেলিভারিতে, সাইফ হাসান ও মুমিনুল হক ফেরেন উইকেট উপহার দিয়ে।

 

এই সিরিজে বাংলাদেশের ব্যাটিং ট্রেন্ডটা দাঁড়িয়ে তামিম ইকবালের ওপর। শুরুতে তিনি সাবলীল ভঙ্গিতে একটা ভিত গড়ে দেবেন, এরপর বাকিরা ইনিংসটাকে টেনে নিয়ে যাবেন। দ্বিতীয় টেস্টে তামিম পথ দেখানোর পরও সেটি পারেননি পরের ব্যাটসম্যানরা। আর গতকাল ব্যক্তিগত ২৪ রানে তামিম আউট হওয়ার পর বোঝাই যাচ্ছিল কী ঘটতে যাচ্ছে!

 

কঠিন চ্যালেঞ্জে ব্যাটিংয়ে নেমে তামিম যথারীতি শুরু করেন দারুণ কিছু শটের মহড়ায়। ইনিংসের দ্বিতীয় বলেই সুরাঙ্গা লাকমলকে বাউন্ডারি মারেন ব্যাকফুট পাঞ্চে। নতুন বলে শুরু করা অফ স্পিনার রমেশ মেন্ডিসকে ছক্কা মারেন চোখধাঁধানো এক ইনসাইড আউট শটে। মেন্ডিসই পরে দুর্দান্ত এক ডেলিভারিতে ফেরান তামিমকে। স্টাস্পে পিচ করা বল টার্ন ও বাউন্সে তামিমের ব্যাটের একপাশে আলতো ছুঁয়ে জমা পড়ে কিপারের গ্লাভসে। টানা চার ফিফটির পর এবার তামিম আউট ২৬ বলে ২৪ করে।

 

এই মেন্ডিসকে একটু পর ছক্কা মারেন সাইফ। বেশ কিছু শট খেলে এই ওপেনার চেষ্টা করেন ইতিবাচক থাকার। কিন্তু বেশি শট খেলার চেষ্টাই কাল হয় তার। বাঁহাতি স্পিনার প্রাভিন জয়াবিক্রমাকে উড়িয়ে মারতে গিয়ে ধরা পড়েন কাভার পয়েন্টে। ততক্ষণে চার টেস্টের ক্যারিয়ারের সর্বোচ্চ ইনিংসটি অবশ্য খেলতে পারেন তরুণ ওপেনার, তবে সেটি কেবলই ৩৪ রানের।

 

চা বিরতির একটু আগে জয়াবিক্রমা থামান শান্তকেও (২৬)। উইকেটের ক্ষতে পিচ করে বল বিশাল টার্ন নিয়ে শান্তর ব্যাট-প্যাডের ফাঁক গলে আঘাত করে স্টাম্পে।

 

এই তিন জনের মতো মুমিনুলও শুরু করেন বেশ আত্মবিশ্বাসী ব্যাটিংয়ে। জয়াবিক্রমার দুই ওভারে বাউন্ডারি মারে দুটি করে। উইকেটে জমেও যান দ্রুত। কিন্তু শেষটা দারুণ হতাশার। মেন্ডিসের স্টাম্পের বাইরের বল থার্ডম্যানে খেলার চেষ্টা করেন অযথাই, ব্যাটের কানায় লেগে বল আসে স্টাম্পে।

 

মুশফিক ৬ রানে ক্যাচ দিয়ে বেঁচে যান জয়াবিক্রমার বলে, ৩১ রানে মেন্ডিসের বলে তার সহজ স্টাম্পিংয়ের সুযোগ ছাড়েন নিরোশান ডিকভেলা। বারবার ক্রিজ ছেড়ে বেরিয়ে, সুইপ-রিভার্স সুইপ খেলে ঝুঁকি নিয়ে এগোতে থাকেন তিনি। শেষ পর্যন্ত মেন্ডিসের বাড়তি লাফানো বল তার গ্লাভসে ছোবল দিয়ে আশ্রয় নেয় লেগ স্লিপে।

 

লিটন দাস ও মেহেদী হাসান মিরাজ বাকি সময়টা টিকে থাকেন কোনোরকমে। দুজনকেই আউট দিয়েছিলেন আম্পায়ার, তারা রক্ষা পান রিভিউ নিয়ে। আজ টেস্টের পঞ্চম দিনে পরাজয়ের অপেক্ষায় ব্যাটিং করতে নামবেন এই দুইজন। তবে আশার কোনো জায়গা নেই।

 

এর আগে চতুর্থ দিন সকালে ২ উইকেটে ১৭ রান নিয়ে শুরু করা শ্রীলঙ্কা দ্বিতীয় ইনিংস ঘোষণা করে ৯ উইকেটে ১৯৪ রানে। দারুণ ফর্মে থাকা দিমুথ করুনারত্নে করেন ৬৬। তাইজুল ইসলাম নেন ৫ উইকেট, টেস্ট ক্যারিয়ারে যা তার অষ্টম।

 

এরপর বোলিংয়ে শ্রীলঙ্কার স্পিনাররা তৈরি করে ফেলেছে জয়ের পথ। টেস্টের পঞ্চম ও শেষ দিনে আজ আরো ভয়ঙ্কর হবেন স্পিনাররা। পিস থেকে সহায়তা পাবেন তারা। ফলে বাংলাদেশের ভাগ্যে এখন একটাই লিখন ‘পরাজয়’। এর থেকে বাংলাদেশকে বাঁচাতে পারে কেবল বৃষ্টিই।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

শ্রীলঙ্কা ১ম ইনিংস: ৪৯৩/৭ (ডি.)

বাংলাদেশ ১ম ইনিংস: ২৫১

শ্রীলঙ্কা ২য় ইনিংস: (আগের দিন ১৭/২) ৪২.২ ওভারে ১৯৪/৯ (ডি.) (করুনারত্নে ৬৬, ম্যাথিউস ১২, ধনাঞ্জয়া ৪১, নিসানকা ২৪, ডিকভেলা ২৪, মেন্ডিস ৮, লাকমল ১২, জয়াবিক্রমা ৩*; মিরাজ ১৪-৩-৬৬-২, শরিফুল ১-০-৮-০, তাইজুল ১৯.২-২-৭২-৫, তাসকিন ৪-০-২৬-১, সাইফ ৪-০-২২-১)।

বাংলাদেশ ২য় ইনিংস: (লক্ষ্য ৪৩৭) ৪৮ ওভারে ১৭৭/৫ (তামিম ২৪, সাইফ ৩৪, শান্ত ২৬, মুমিনুল ৩২, মুশফিক ৪০, লিটন ১৪*, মিরাজ ৪*; লাকমল ৪-২-১৪-০, মেন্ডিস ২০-০-৮৬-৩, জয়াবিক্রমা ২০-৫-৫৮-২, ধনাঞ্জয়া ৪-০-১৬-০)


error: Content is protected !!