ঢাকা, বুধবার, ১৬ই জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ২রা আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
ঢাকা, বুধবার, ১৬ই জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ২রা আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

পাহাড়ের রসালু আম্রপলি বাজারে আসার অপেক্ষায়

এম জামান রাজ,স্টাফ রিপোর্টার,খাগড়াছড়ি : মধুমাস জৈষ্ঠের এই সময়টিতে পানছড়ির উপজেলায় পাঁকা কাঁচা আম বাজারে আসতে শুরু করেছে। শিলা বৃষ্টি ও ঝড়ো আবহাওয়া না থাকায় এবার আমের বাম্পার ফলনের সম্ভাবনা রয়েছে।

আবহাওয়া এখনো পর্যন্ত অনুকূলে থাকার ফলে আমের গুণগত মান ভালো রয়েছে বলে জানান উপসহকারী উদ্ভিদ সংরক্ষন কর্মকর্তা অরুনাঙ্কর চাকমা। চলতি মৌসুমে এই উপজেলায় আমের ফলনও এ পর্যন্ত ভালো আছে বলে জানিয়েছেন আমচাষীরা। প্রাকৃতিক দুর্যোগ দেখা না দিলে উপজেলার চাহিদা মিটায়ে ঢাকা, চট্টগ্রাম, কুমিল্লা ,ফেনীতে আম বিক্রি করার আশা ব্যক্ত করছেন স্থানীয় আম চাষীরা।

উপজেলার বিস্তীর্ন পাহাড়ের বাগান গুলোতে শোভা পাচ্ছে নানান জাতের আম। দেশের সবচেয়ে সেরা আম উৎপাদন করতে চেষ্টার কোন ঘাটতি নেই আমচাষীদের। চলতি মৌসুমে এই উপজেলায় অনাবৃষ্টির কারণে অনেকটাই বিপাকে পড়েছিলেন আমচাষীরা। সম্প্রতি সময়ে কয়েক দফায় বৃষ্টি হবার ফলে অনেকটা স্বস্তি বোধ করছেন বাগান মালিকরা। সবচেয়ে ভালো মানের আম উৎপাদন করার লক্ষ্যে শেষ সময়েও বাগান পরিচর্যায় ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন বাগানীরা।

 

এ বিষয়ে উপজেলার লতিবান এলাকার বাগান মালিক মারসাল চাকমা জানান, উপজেলার বাগানগুলোতে সম্প্রতিকালে আমের গুণগত মান ভালো রয়েছে। প্রাকৃতিক দুর্যোগ হানা না দিলে চলতি মৌসুমে গত বছরের তুলনায় আমের বাম্পার ফলন হয়েছে। রুপালী আম পাঁকা শুরু হয়েছে। আবহাওয়া প্রতিকুলে থাকলে আগামী ১০-১৫ দিনের মধ্যে রত্না ও আম্রপলি বাজারে যাবে। এছাড়াও যোগাযোগ ব্যবস্থা ভালো থাকলে এবং সমতলে আম চালান করতে পারলে আর্থিকভাবে লাভবান হবেন আম চাষীরা।

 

কালানাল গ্রামের বাগান মালিক আব্বাস বলেন, গত বছরের তুলনায় এ বছরে আমার বাগানে প্রায় দ্বিগুন পরিমাণে গাছে আম ধরেছে। আশা করছি এবার আমের বাম্পার ফলন হয়েছে। বাজার দামের উপর লাভ-ক্ষতি নির্ভর করবে।

এ বিষয়ে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ নাজমুল হাসান জানান, চলতি মৌসুমে এ উপজেলার বাগান গুলোতে আম্রপলী, রত্না, রাঙ্গুই, বারী-৪ আম চাষ করছেন চাষীরা। তবে আম্রপলি ও রাঙ্গুই জাতের আমের চাষই বেশী। এ বছর বড় আকারের প্রাকৃতিক দুর্যোগ না হওয়ায় আমের তেমন কোন ক্ষতি হয়নি। এজন্য ধার্যকৃত লক্ষমাত্রার চেয়ে অধিক পরিমাণে আম উৎপাদনের সম্ভাবনা রয়েছে।


error: Content is protected !!