ঢাকা, সোমবার, ২রা আগস্ট, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ১৮ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
ঢাকা, সোমবার, ২রা আগস্ট, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ১৮ই শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

শ্রীনগরের দেউলভোগ হাটে নৌকা বিক্রির হিড়িক

শ্রীনগর (মুন্সীগঞ্জ) প্রতিনিধি: গ্রামগঞ্জের খাল-বিল ও নদী-নালায় জোয়ারের পানি আসতে শুরু করার মধ্যে দিয়ে বর্ষা মৌসুমের আগমনী বার্তা যেন হৃদয়ে দোলা দিচ্ছে। এরই মধ্যে বর্ষাকে সামনে রেখে স্থানীয় হাটে নৌকা বিক্রির হিড়িক পড়েছে।

 

বর্ষায় চলাচলে নিরর্ভরশীল অনেককেই হাট থেকে নৌকা কিনে বাড়ি ফিরছেন। মুন্সীগঞ্জ জেলার শ্রীনগর উপজেলার দেউলভোগ নৌকার হাট জুড়ে এমনটাই লক্ষ্য করা গেছে। সপ্তাহের প্রতি মঙ্গলবার দিনব্যাপী এখানে বিভিন্ন সাইজের প্রায় দেড় শতাধিক রেডিমেট কোষা নৌকার বিকিকিনি হচ্ছে।

 

 

সরেজমিনে দেখা গেছে, শ্রীনগর সদর ইউনিয়নের দেউলভোগে একমাত্র বড় নৌকা হাটে বিভিন্ন সাইজের কোষা নৌকার পসরা সাজিয়ে বসেছেন দোকানীরা। আকার ও কাঠের গুনগত মানের ওপর এসব কোষা নৌকার দাম হাকানো হচ্ছে।

 

সর্বোনি¤œ ২ হাজার ৫শ’ থেকে ৮ হাজার টাকা পর্যন্ত রেডিমেট কোষা নৌকা সাজিয়ে রাখা হয়েছে এখানে। ১০/১২ জন নৌকা ব্যবসায়ী এখানে ভাসমান দোকান খুলে বসেছেন। দারদাম ঠিক হলেই ক্রেতারা তাদের পছন্দের নৌকা নিয়ে বাড়িতে যাচ্ছেন।

 

 

এ সময় কয়েকজন ক্রেতা জানান, বর্ষার সিজনে নৌকায় করেই তাদের চলা ফেরা করতে হয়। রাস্তার অভাবে যাতায়াতের জন্য নৌকার ওপর নির্ভরশীল থাকতে হয় তাদের। এছাড়াও গবাদি পশুর কাঁচা ঘাস সংগ্রহ, সাংসারিক কাজকর্ম ও মাছ শিকারের জন্য অনেকেই নৌকা কিনতে এখানে আসতে দেখা গেছে।

 

 

এসময় মো. মনির হোসেন, মিনার হোসেন, রুহুল আমিন, মো. আলেক, কালা চাঁন, তাঁরা পদ ও মো. সোহেল বলেন, কাঠের মান ও সাইজ অনুসারে রেডিমেট এসব কোষা নৌকার দাম নির্ধারণ করা হয়। নিজস্ব কাঠ মিস্ত্রি দিয়ে তারা বাড়িতে নৌকা তৈরীর কাজ করেন। এছাড়া ক্রেতাদের চাহিদা অনুযায়ীও নৌকা তৈরীর অর্ডার নিয়ে থাকেন তারা।

 

 

এব্যাপারে দেউলভোগ নৌকা হাটের ইজারাদার মো. সাগর বলেন, জেলায় ঐতিহ্যবাহী দেউলভোগ নৌকার হাটটির ব্যাপক পরিচিতি রয়েছে। এই অঞ্চলের বিশাল জনগোষ্ঠির বড় একটি অংশ বর্ষার কয়েক মাস যাতায়াতের জন্য নৌকার ওপর নির্ভরশীল হয়ে পড়েন। এদের অনেকেই এই হাটে নৌকা কিনতে আসেন। প্রত্যেক মঙ্গলবার সাপ্তাহিক নৌকার হাট বসলেও প্রতিদিনই এখানে নৌকা বিকিকিনি হয়।


error: Content is protected !!