ঢাকা, বুধবার, ১৯শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ৫ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
ঢাকা, বুধবার, ১৯শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ৫ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

মন্ত্রীর চেক ফেরৎ দিল ব্যাংক, ফেসবুকে ক্ষোভ

ডি‌সেম্বর বানান বাংলায় লেখার কারণে একটি ব্যাংক ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বারের চেক ফেরৎ দিয়েছে। এনিয়ে ফেসবুকে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন তিনি।

আজ বৃহস্পতিবার মন্ত্রী তাঁর ভেরিফাইড ফেসবুক পেজে এনিয়ে একটি পোস্ট করন। সেখানে তিনি লেখেন, ‘মন চাইছে আত্মহত‌্যা ক‌রি। এক‌টি চে‌কে আমি ডি‌সেম্বর বাংলায় লি‌খে‌ছি ব‌লে কাউন্টার থে‌কে চেক‌টি ফেরৎ দি‌য়ে‌ছে। কোন দে‌শে আছি?’

 

এমন পোস্ট করার পর এটি ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়ে। এই প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত প্রায় চারশ বার শেয়ার করা হয়েছে তাঁর পোস্ট। এছাড়াও অর্ধশতাধিত মন্তব্য করেছে ফেসবুক ব্যবহারকারীরা। প্রায় চার হাজার ফেসবুক ব্যবহারকারী রিয়েঅ্যাক্ট দিয়েছে।

ইসরাত জাহান রাখি নামের এক ফেসবুক ব্যবহারকারী মন্তব্যের ঘরে লেখেছেন, ‘স্যার, আপনাকে যদি এতোটা নির্যাতন করে, একবার ভাবুন আমাদের মতো সাধারণ মানুষকে কতটা সহ্য করতে হয়। আপনার প্রতি অনুরোধ থাকল, এই সব পরিবর্তন করে দিন।’

মুহাম্মদ আবদুল্লাহ আল নোমান নামের আরেক ফেসবুক ব্যবহারকারী লেখেন, ‘অগ্রহায়ণ ১৪২৮, লিখলে হয়তো জেলে নিতো’। আতাউর রহমান লেখেন, ‘আপনারা চাইলেই এর সমাধান নিয়ে আসতে পারেন স্যার। বাংলা নিয়ে তো অন্য কোনো মন্ত্রীর তেমন আগ্রহ নেই, যেটা আপনি করেন।’

জাকিয়া আফরোজ মুক্তি নামের একজন লেখেন, ‘সর্বত্র বাংলা ভাষা চালু হোক।’ জি. এম. পানাউল্লাহ লেখেন, ‘ব্যাংকের কাউন্টারে যাঁরা দায়িত্ব পালন করেন তাঁরা ব্যাংকের নীতিমালা ও কার্যপ্রণালীতে প্রশিক্ষিত, এর বাইরের দুনিয়া তাঁদের অচেনা। খোলনলচে পাল্টে সঠিক পদ্ধতি অধিষ্ঠিত ও চালু না করা পর্যন্ত এর ব্যত্যয় হবে না। এটি নীতি নির্ধারণী বিষয়- যেদিকে দ্রুত নজর দেওয়া প্রয়োজন’।

শাইখ সিরাজী লেখেছেন, ‘সকল অফিসিয়াল কাজে বাংলা ভাষাকে আরো বেশি প্রাধান্য দেওয়ার কঠোর আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে আমাদের’। ইরফান আহম্মেদ শরীফ লেখেন, ‘চেক বাংলায় লিখার নিয়ম করা হোক’।

 


error: Content is protected !!