ঢাকা, মঙ্গলবার, ৫ই জুলাই, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ২১শে আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
ঢাকা, মঙ্গলবার, ৫ই জুলাই, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ২১শে আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

শরীয়তপুরে কন্দাল ফসল চাষে বৈপ্লবিক পরিবর্তন

শরীয়তপুর প্রতিনিধি: বৈচিত্র্যময় ফসলের ভান্ডার খ্যাত শরীয়তপুরের জাজিরায় কন্দাল ফসলের একটি বৈপ্লবিক পরিবর্তন লক্ষ্য করা যাচ্ছে। এ উপজেলায় কন্দাল ফসল উন্নয়ন প্রকল্প শুরুর পর থেকে কৃষকদের মাঝে এই পদ্ধতিতে কম খরচে ফসল চাষে ব্যাপক আগ্রহ বেড়েছে।

 

ইতিমধ্য জাজিরাতে জাপানি মিষ্টি আলু, ওলকচু, পানি কচু, লতিকচু, আলু, মুখীকচু, গাছ আলু, কাসাভা প্রভৃতি কন্দাল ফসল চাষে কৃষকরা অধিক আগ্রহী হয়ে ফসল ফলাচ্ছে। আরো ব্যাপক হারে কন্দাল ফসল চাষে আগ্রহী করতে জাজিরায় এ বিষয়ে “খরিপ-১ মৌসুমে” ৫ টি ব্যাচে ১৫০ জন কৃষক কে প্রশিক্ষণ প্রদান করা হচ্ছে। কন্দাল ফসল চাষে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তার কার্যালয় ৫টি বিষয় কে অগ্রাধিকার দিয়ে কৃষকদের এ প্রশিক্ষণ দেয়া হচ্ছে।

 

১. কন্দাল ফসল চাষ নিরাপদ (বালাইনাশক খুবই কম ব্যবহার হয়) ২। কন্দাল ফসলের বাজার মূল্য স্থিতিশীল থাকে ৩ পতিত ও কম উর্বর জমিতেও চাষ উপযোগী ৪। একজন কৃষক যাতে একটি ফসল না করে অপেক্ষাকৃত দামে স্থিতিশীলতা রয়েছে এমন ফসল চাষে অভ্যস্ততা করানো ৫। মশলা এবং সবজি ফসল বিন্যাসে আন্তঃ ফসল হিসাবে কন্দাল ফসল অন্তর্ভুক্ত করন।

 

ইতিমধ্যেই পেয়াজের জমিতে পানি কচু এবং শসা বা ধুন্দল এর জমিতে মুখীকচু ও পানি কচু চাষ পরিলক্ষিত হচ্ছে।। প্রশিক্ষণে বিজ্ঞ রিসোর্স পারসন হিসেবে উপস্থিত থাকছেন কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর শরীয়তপুরের উপপরিচালক (ভারপ্রাপ্ত) কৃষিবিদ জনাব গোলাম রাসুল, জেলা বীজ প্রত্যায়ন অফিসার জনাব কৃষিবিদ মোঃ মাহবুবার রহমান, অতিরিক্ত উপপরিচালক জনাব মোঃ বিন ইয়ামিন, উপজেলা কৃষি অফিসার কৃষিবিদ জনাব মোঃ জামাল হোসেন, বিভিন্ন গবেষণা প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা বৃন্দ ও সহকারী কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা মোঃ কেরামত আলী মোল্লা সহ বিষয়ে অভিজ্ঞ অন্যান্য কর্মকর্তা বৃন্দ।।