ঢাকা, বুধবার, ৮ই ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ, ২৫শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
ঢাকা, বুধবার, ৮ই ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ, ২৫শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

পার্বত্য অঞ্চলের যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়নে ফলে পাহাড়ের মানুষের অর্থনৈতিক অবস্থার উন্নতি হয়েছে— দীপংকর তালুকদার

  • 4Words
  • Views

স্টাফ রিপোর্টার ,রাঙ্গামাটি :
পার্বত্য অঞ্চলের যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়নে ফলে পাহাড়ের মানুষের অর্থনৈতিক অবস্থার উন্নতি হয়েছে বলে জানিয়েছেন খাদ্য মন্ত্রনালায় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি দীপংকর তালুকদার। তিনি বলেন পাহাড়ের মানুষ আগে নিজেদেরকে আলাদা ভাবতো। কিন্তু বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় এসে ১৯৯৭ সালে শান্তি চুক্তি বাস্তবায়নের মাধ্যমে পাহাড়ে উন্নয়নের দ্বাঢ় উন্মোচন করেছে। রাঙ্গামাটি সহ তিন পার্বত্য জেলার প্রতিটি সড়ক আজ মহাসড়কে রূপান্তর হয়েছে । যত গুলো ঝুঁকিপূর্ণ বেইলী ব্রীজ ছিলো তা আজ নতুন পাকা ব্রীজ করা হয়েছে ।

 

১৯ ডিসেম্বর ২০২২ সোমবার সকালে রাঙ্গামাটি ঘাগড়া বাঙ্গালহালিয়া বান্দরবান সড়কের ৪১ মিটার দীর্ঘ নান্দনিক সেতুর উদ্বোধন করতে গিয়ে খাদ্য মন্ত্রনালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি দীপংকর তালুকদার এমপি এ কথা বলেন। এই সেতু নির্মাণের ফলে রাঙ্গামাটি জেলার সাথে বান্দরবান জেলা ও রাঙ্গামাটি ২ টি উপজেলার সড়ক যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়ন হয়েছে।

সোমবার সকালে ব্রীজ উদ্বোধন কালে রাঙ্গামাটি জেলা পরিষদ সদস্য অংসুছাইন চৌধুরী, সড়ক ও জনপথ বিভাগের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী মোফাজ্জল হায়দার, নির্বাহী প্রকৌশলী মাহমুদ আল-নুর সালেহীন, উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী মোঃ আদনান ইবনে হাসান, রাঙ্গামাটির কাউখালী উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মোঃ শামসুদ্দোহা চৌধুরী, ঘাগড়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মোঃ নাজিম উদ্দিন সহ স্থানীয় নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

 

সড়ক ও জনপথ বিভাগ সুত্র জানায় রাঙ্গামাটি ঘাগড়া বাঙ্গালহালিয়া বান্দরবান সড়কের ৪১ মিটার দীর্ঘ পিসি গার্ডার ব্রীজের প্রস্থ হচ্ছে ১০.২৫ মি, সেতুার স্পেন হচ্ছে ১ টি, সেতার গার্ডার সংখ্যা হচ্ছে ৫টি। বাংলাদেশ সরকার জিওবি ফান্ডের অর্থায়নে ৭ কোটি ৪৬ লক্ষ টাকা ব্যয়ে মেসার্স সেলিম এন্ড ব্রাদাস এই ব্রীজের নির্মাণ কাজ করে।