ঢাকা, বুধবার, ২৮শে অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ, ১২ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
ঢাকা, বুধবার, ২৮শে অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ, ১২ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

নড়িয়ায় প্রবাসীর বাড়িতে হামলা ভাংচুর ও লুটপাট!

শরীয়তপুর প্রতিনিধি: শরীয়তপুরের নড়িয়া উপজেলার ঘড়িসার ইউনিয়নের নন্দনসার গ্রামে ইতালি প্রবাসী নাহিদ বেপারীর বাড়িতে হামলা ভাঙচুর ও লুটপাটের ঘটনা ঘটেছে।

 

জানা যায়, গতকাল দুপুরে ইতালি প্রবাসী নাহিদ বেপারীর বাড়িতে অতর্কিত হামলা চালিয়ে ভাঙচুর লুটপাট করে এবং বাড়িতে থাকা প্রবাসীর বৃদ্ধ বাবা-মাকে প্রাণনাশের হুমকি দেয় ঐ স্থানীয় ঘড়িসার ইউনিয়ন ৫ নং ওয়ার্ড মেম্বার খোকন ব্যাপারীর ছেলে ইমন, ইয়ন সহ ২৫-৩০ জন। সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায় বাড়ির মূল গেইট, ঘরের ভিতরে সোকেস, দুই টা স্টীলের আলমারি ভাঙা ও সকল কিছু ছড়ানো ছিটানো ভাবে পড়ে থাকতে দেখা যায়।

 

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্র জানায়, ঘরিসার ইউনিয়নেরর নন্দনসার গ্রামের বেপারী বাড়ীতে জায়গা জমিন নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছে। প্রভাবশালী ইউপি মেম্বারসহ বাড়ির এক পক্ষ জলিল বেপারীসহ অন্য পক্ষের জমিজমা দখল করে রেখেছে। জমি উদ্ধারে জলিল বেপারীর স্ত্রী রোকেয়া বেগম আদালতে দেওয়ানী মামলা করেন। মামলা উঠিয়ে নেওয়ার জন্য ইউপি মেম্বার বিভিন্ন ভাবে হুমকি দিয়ে আসছিলেন। অবশেষে মামলা নিস্পর্তি না হতেই বাড়ির অংশিদারদের মাধ্যে ভাগবাটোয়ারা না করে নিজের পছন্দমত জায়গায় বিল্ডিং ঘর নির্মান কাজ শুরু করেন।

 

প্রবাসীর মা রোকিয়া বেগম জানায়, আমার প্রতিবেশী চাচাতো ভাই ৫ নং ওয়ার্ডের মেম্বার খোকন বেপারী জোরপূর্বক আমাদের বসতবাড়ির জায়গা দখল করে ঘর তুলতে ছিল। আমার ছেলে নাহিদ বেপারী তাদের জায়গা মেপে করে ঘর তোলার জন্য বললে সে উল্টো ধমক দিয়ে বলে আমার জায়গায় আমি ঘর তুলতেছি জায়গা মাপতে হবে কেন? তুই এখান থেকে যা আমার কাজ আমাকে করতে দে। এসময় তাদের দুইজনের মধ্যে কথাকাটাকাটি হয়। পরে আমার ছেলে তার সাথে কথা না বাড়িয়ে মাদারীপুর চলে যায়। এই সুযোগে বারিখালি পেয়ে খোকন মেম্বারের ছেলে ইমন তার বাঁড়াটিকে গুন্ডা বাহিনী নিয়ে আমার বাড়িতে হামলা চালায় এবং ঘরের ভিতরে ঢুকে ভাঙচুর লুটপাট করে স্বর্ণালঙ্কার টাকা পয়সা সব নিয়ে যায়। আমি বাধা দিতে গেলে আমাকে হত্যা করার হুমকি দেয় এবং বলে তোমার ছেলে কোথায়? ওরে বের করে দাও আজকে মেরেই ফেলবো। আমি বাধা দিতে গেলে আমাকে হত্যার উদ্দেশ্যে দেশীয় অস্ত্র দিয়ে হত্যার হুমকি দেয়। আরেকজনের হাতে থাকা একটি চাইনিজ কুড়াল দিয়ে আমার মাথায় কোপ মারিলে আমি মাথা সরিয়ে নিলে কোপ গিয়ে ঘরের ফ্লোরের লাগে। পরে আমি ভয়ে আর কিছু না বলে ওখানে চুপ করে দাঁড়িয়ে থাকি এবং ওরা ঘরের আলমারি শোকেস ভেঙে আমার সব টাকা-পয়সা স্বর্ণালংকার নিয়ে যায়। তিনি আরো বলেন আমার ছেলে, নাহিদ বেপারীর সাথে যারা সঙ্গদেয় এবং যারা নেভাবে এই অন্যায় কাজ কে বাধা দেয় তাদেরকেও মারধর করার জন্য খুজে ইমনের নেতৃত্বে আসা সন্ত্রীরা।

 

অভিযুক্ত ইউপি সদস্য খোকন বেপারী বলেন, আমার জায়গায় আমি ঘর তুলছি। সেই ঘর তোলার কাজে বাধা প্রদান করে এবং আমাকে বিভিন্নভাবে গালিগালাজ করেছে নাহিদ বেপারী। আমার ছেলেরা এসব কথা শুনে তাকে জিজ্ঞেস করার জন্য তার বাড়িতে গিয়েছে। কিন্তু হামলা-ভাঙচুর-লুটপাট এই ধরনের কোন কার্যকলাপ আমার ছেলে ও তার বন্ধুরা করেনি। বাবাকে বকাঝকা করলে ছেলে তো একটু রাগ করবেই। কিন্তু তারা যেটা বলছে হামলা ভাঙচুরের ঘটনার কথা এরকম কিছুই এখানে হয়নি। তবে আমার ছেলেরা চলে যাওয়ার পরে তারাই নিজেদের ঘরের আসবাবপত্র ভেঙেচুরে আমাদের নামে মিথ্যা মামলা দিয়েছে।

 

এ ঘটনায় আমি খোকন মেম্বার ও তার ছেলে সহ ৩০ জনের বিরুদ্ধে নড়িয়া থানায় একটি মামলা দায়ের করেছি। আমার বাড়িতে ঘটে যাওয়া এই সন্ত্রাসী হামলার তদন্ত সাপেক্ষে সুষ্ঠু বিচার দাবি করছি পুলিশ প্রশাসনের কাছে।

 

এতে মামলারবাদী রোকেয়া বেগম ও তার পুত্র ইটালী প্রবাসী নাহিদ বেপারী ১১ অক্টোবর বাধা দিলে সে ক্ষিপ্ত হয়ে উঠে। পরে ১২ অক্টোবর দুপুরে অভিযুক্ত ইউপি মেম্বার এর ২ পুত্রের নেতৃত্বে ২৫/৩০ জনের অজ্ঞাত সন্ত্রাসীরা ১০/১২টি মটর সাইকেল যোগে এসে জলিল বেপারীর পুত্র নাহিদ বেপারীকে খুন করার উদ্দেশ্যে জলিল বেপারীর বসত ঘরে হামলা চালায়।

 

পরে এ ঘটনায় নড়িয়া থানায় গত রাতে একটি মামলা দায়ের করেছে ক্ষতিগ্রস্থ্য রোকেয়া
বেগম। তারা ইউপি মেম্বার খোকন বেপারী ও তার ২পুত্র ইমন বেপারী ও ইয়ন বেপারীসহ জড়িত সকল সন্ত্রাসীদের বিচার দাবি করেছেন ক্ষতিগ্রস্থ্য পরিবার। এর প্রতিবাদে এগিয়ে আসা ফজলু বেপরীকেও জীবন নাশের হুমকি দেয় সন্ত্রাসীরা। তবে অভিযুক্ত ইউপি মেম্বার খোকন বেপারী তার বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ অস্বিকার করেছেন।

 

নড়িয়া থানার ওসি মোহাম্মদ হাফিজুর রহমান বলেন, ঘড়িসার ইউনিয়নের নন্দনসার গ্রামে একটি বাড়িতে ভাঙচুর ও লুটপাট হয়েছে এমন একটি খবর পাওয়ার সাথে সাথে আমি আমার ফোর্স পাঠিয়ে ঘটনা তদন্ত করাই। এ ঘটনায় প্রবাসীর মা বাদী হয়ে একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে আমরা আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করছি। আসামিদের ধরার চেষ্টা আমাদের অব্যাহত রয়েছে। তবে আমি যতটুকু জেনেছি তাদের দুই পক্ষের মধ্যে জায়গা জমি নিয়ে বহু দিন যাবৎ বিরোধ চলছিল। তারি কারণে এই ঘটনা সংঘটিত হয়েছে।


error: Content is protected !!