ঢাকা, রবিবার, ১৬ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ২রা আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
ঢাকা, রবিবার, ১৬ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ২রা আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
প্রশাসনের সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন

নানা শঙ্কায় খাগড়াছড়ি ৩ উপজেলায় নির্বাচন মঙ্গলবার

স্টাফ রিপোর্টার .খাগড়াছড়ি :
ষষ্ট উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে দ্বিতীয় ধাপে নানা শঙ্কার মধ্যে ২১ মে মঙ্গলবার অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে খাগড়াছড়ি সদর সহ তিন উপজেলা পরিষদে নির্বাচন। ভোট গ্রহণে এরই মধ্যে সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে প্রশাসন। কেন্দ্রে কেন্দ্রে পৌঁছে গেছে নির্বাচনী সরঞ্জাম। নিরাপত্তায় বজায় রাখতে প্রতিটি কেন্দ্রে আনসার ভিডিপি ও পুলিশের পাশাপশি মোতায়েন করা হয়েছে বিজিবি ও র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন র‌্যাব।

 

 

এবার খাগড়াছড়ি সদর, পানছড়ি ও দীঘিনালা সহ তিন উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে ১০ জন, ভাইস চেয়ারম্যান পদে ১২জন ও নারী ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৭জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছে। তার মধ্যে খাগড়াছড়ি সদর উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে ৬জন, ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৫জন এবং নারী ভাইস চেয়ারম্যান পদে রয়েছে ৩জন প্রার্থী।

 

 

নির্বাচনে প্রতিপক্ষ প্রার্থীর বিরুদ্ধে কেন্দ্র দখলসহ সহিংসতার আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন খোদ চেয়ারম্যান প্রার্থী জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক দিদারুল আলম (আনারস)। আর জেলার শেষ প্রান্ত ভারত সীমান্তবর্তী পানছড়ি উপজেলায় পাহাড়ের দুই আঞ্চলিক সংগঠনের প্রার্থীর কারণে সংঘাতের আশঙ্কায় শঙ্কিত ভোটাররা।

 

 

খাগড়াছড়ি সদর উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক দিদারুল আলম (আনারস), সদর উপজেলা আ.লীগের কোষাধ্যক্ষ ও বর্তমান ভাইস চেয়ারম্যান মো. আকতার হোসেন (মোটরসাইকেল), ৩নং গোলাবাড়ী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি জ্ঞান রঞ্জন ত্রিপুরা (কৈ মাছ), জাতীয় পার্টির নজরুল ইসলাম (লাঙল), বাংলাদেশ ত্রিপুরা কল্যাণ সংসদ কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি সুশীল জীবন ত্রিপুরা (টেলিফোন) ও ভারত প্রত্যাগত শরণার্থী কল্যাণ সমিতির সাধারণ সম্পাদক সন্তোষিত চাকমা বকুল (দোয়াত-কলম) প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছে। সদর উপজেলায় ৪১টি ভোট কেন্দ্রে মোট ভোটার ৯২ হাজার ৮৬৪ জন। তার মধ্যে পুরুষ ভোটার ৪৭ হাজার ৮৯৫ আর নারী ভোটার ৪৪ হাজার ৯৬৯জন।

 

 

সদর উপজেলায় ভাইস চেয়ারম্যান পদে মো. আসাদ উল্লাহ (বই), ক্যউচিং মারমা (তালা), মো. আবু হানিফ (টিয়াপাখি), মো. এরশাদ হোসেন (চশমা) ও শাহাবুদ্দিন সরকার (টিউবওয়েল)। মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে কল্যাণী ত্রিপুরা (কলস), নিউসা মগ (প্রজাপতি) ও নারী উদ্যোগক্তা নিপু ত্রিপুরা (ফুটবল) প্রতিক নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছে।

এদিকে, খাগড়াছড়ি সদর উপজেলায় চেয়ারম্যান প্রার্থী জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক দিদারুল আলম পৌর এলাকার ৬টি কেন্দ্র দখল ও বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করে ভোট বানচালের ষড়যন্ত্রের অভিযোগ করেছে প্রতিপক্ষ প্রার্থীর বিরুদ্ধে। তিনি ১৯ মে রবিবার দুপুরে শহরের নারিকেলবাগানস্থ তার প্রধান নির্বাচনী কার্যালয়ে সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময় সভায় এ অভিযোগ করে। এ বিষয়ে প্রশাসন ও সাংবাদিকদের সহযোগীতা চেয়ে অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের পরিবেশ নিশ্চিত করার দাবি জানান। প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ তুলে ধরে সাংবাদিকদের দিদারুল আলম জানান, জৈনিক প্রার্থী নিজেকে স্থানীয় প্রতিমন্ত্রী ও পার্বত্য জেলা পরিষদ চেয়ারম্যানের সমর্থীত প্রার্থী বলে মিথ্যাচার করে ভোটারদের মাঝে বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছে। যা আদৌ বিন্দু মাত্রও সত্য নয়।

 

অন্যদিকে, ভারত সীমান্তবর্তী পানছড়ি উপজেলায় গত দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ২৫টি ভোট কেন্দ্রের মধ্যে ১১টি কেন্দ্রে ভোট ছিলো শূন্য। আর অপর একটি কেন্দ্রে ভোট পরেছে মাত্র ১টি তাও নৌকায়। তবে এবার উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের কোনো নেতাকর্মী চেয়ারম্যান প্রার্থী হয়নি। এখানে পাহাড়ের দুই আঞ্চলিক সংগঠন মূল ইউপিডিএফ প্রসীত খীসা ও ইউপিডিএফ গণতান্ত্রিক চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছে।

 

পানছড়িতে চেয়ারম্যান পদে মূল ইউপিডিএফ প্রসীত খীসা সমর্থিত বর্তমান প্যানেল চেয়ারম্যান চন্দ্র দেব চাকমা (কাপ-পিরিচ) ও ইউপিডিএফ গণতান্ত্রিক সমর্থিত চেয়ারম্যান প্রার্থী মিটন চাকমা (আনারস) প্রতীক নিয়ে মাঠে লড়ছে।

এছাড়া ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৪ জন ও নারী ভাইস চেয়ারম্যান পদে রয়েছে ২জন প্রার্থী। ভাইস চেয়ারম্যান পদে উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ সভাপতি সাংবাদিক জয়নাথ দেব (তালা), উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ সভাপতি ও সাবেক উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান লোকমান হোসেন (বৈদ্যুতিক বাল্ব), তরুন উদিয়মান যুব নেতা সৈকত চাকমা (টিউবওয়েল) ও সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান ও আওয়ামী নেতা কিরণ ত্রিপুরা (চশমা) প্রতীক নিয়ে মাঠে পরবেন। ।

 

মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে বর্তমান ভাইস চেয়ারম্যান মনিতা ত্রিপুরা (ফুটবল) ও পানছড়ি উপজাতীয় গন অকিার পরিষদের সদস্য সচিব সুজাতা চাকমা (কলস) প্রতিক নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছে। পানছড়ি উপজেলায় মোট ভোটার ৫৬ হাজার ৫ ভোট। তার মধ্যে পুরুষ ভোটার ২৮ হাজার ২৪ ভোট ও নারী ভোটার ২৭ হাজার ৯৮০।

 

নাম প্রকাশ না করার শর্তে জেলার শেষ প্রান্ত ও ভারত সীমান্তবর্তী এ এলাকার একাধীক ভোটার জানিয়েছেন, পাহাড়ের সশস্ত্র দুই আঞ্চলিক সংগঠনের প্রার্থী থাকার কারণে উপজেলার সাধারণ ভোটাররা নির্বাচনের দিন সংঘাতের আশঙ্কায় আতঙ্কিত।

 

দীঘিনালায় চেয়ারম্যান পদে ২জন, ভাইস চেয়ারম্যা পদে ৩জন ও নারী ভাইস চেয়ারম্যান পদে ২জন। চেয়ারম্যান পদে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও বর্তমান চেয়ারম্যান মো. কাশেম (আনারস) ও মূল ইউপিডিএফ প্রসীত খীসা সমর্থিত প্রার্থী ধর্ম জ্যোতি চাকমা (মোটরসাইকেল)। ভাইস চেয়ারম্যান পদে মোস্তফা কামাল (টিউবওয়েল), সোলাইমান (টিয়াপাখি) ও সুসময় চাকমা (চশমা)। মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে সীমা দেওয়ান (কলসি) ও বিলকিছ বেগম (প্রজাপতি) প্রতিক নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছে। এখানে মোট ভোটার ৯০ হাজার ১৯৪। তার মধ্যে ৪৬ হাজার ৮১ জন পুরুষ ভোটার আর নারী ভোটার ৪৪ হাজার ১১২ জন। গত দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে দীঘিনালায় তিনটি কেন্দ্র ছিল ভোট শূন্য আর পাঁচটি কেন্দ্রে ভোট পড়েছে মাত্র ১৮ টি। এ উপজেলার দুর্গম নাড়াইছড়িতে ভোটার সরঞ্জাম গেছে হেলিকপ্টারে।

 

 

রিটার্নিং অফিসার ও অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) জোনায়েদ কবীর সোহাগ জানিয়েছেন, নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠ ও নিরপেক্ষ ভাবে সম্পন্ন করতে প্রশাসনের সব ধরনের প্রস্তুতি রয়েছে। তিনি এ ব্যাপারে সকল প্রার্থীর সার্বিক সহযোগিতা চেয়েছেন। প্রার্থীদের নির্বাচনের আচরণ বিধি মেনে প্রচারণা চালানোর অনুরোধ জানিয়ে রিটার্নিং কর্মকর্তা বলেন, আচরণ বিধি লঙ্গন হলে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। নির্বাচন অবাধ সুষ্ঠ করতে প্রতিটি উপজেলাতে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সমন্বয়ে মনিটরিং করা হচ্ছে।

 

 

এদিকে ২০ মে সোমবার সকালে এক প্রেস ব্রিফিং এ খাগড়াছড়ির পুলিশ সুপার মুক্তা ধর বলেন, নির্বাচন অবাধ ও সুষ্ঠু করতে সব ধরনের প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে। ভোটাররা যাতে নির্বিঘ্নে ও নিরাপদে ভোট দিয়ে বাড়ি ফিরতে পারে তার জন্য পুলিশের পাশাপাশি র‌্যাব-বিজিবি সহ চার স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা থাকবে।

 

 

পাহাড়ে জাতীয় রাজনৈতিক দলের পাশাপাশি সশস্ত্র আঞ্চলিক রাজনৈতিক সংগঠনগুলো নানা ভাবে আলোচিত ও সমালোচিত। তাই ষষ্ট উপজেলা পরিষদ নির্বাচনেও কাজ করে নানামুখী সমীকরণ। এ নির্বাচনেও কোন কোন প্রার্থী নির্বাচিত হবেন, তা অপেক্ষা করতে হবে নির্বাচনের শেষ দিন ভোটের ফলাফল ঘোষণা না করা পর্যন্ত।


error: Content is protected !!