ঢাকা, রবিবার, ১৬ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ২রা আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
ঢাকা, রবিবার, ১৬ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ২রা আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ইচ্ছাকৃত ঋণখেলাপিদের বিষয়ে এফবিসিসিআই সুপারিশ করে না : সভাপতি

ইচ্ছাকৃত ঋণখেলাপিদের বিষয়ে দ্য ফেডারেশন অব বাংলাদেশ চেম্বার্স অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি (এফবিসিসিআই) সুপারিশ করে না বলে দাবি করেছেন সংগঠনটির সভাপতি মো. মাহবুবুল আলম। যারা ব্যবসা করতে গিয়ে ঋণখেলাপি হয়েছে তাদের জন্য ব্যাংকের সাহায্য অব্যাহত চান তিনি।

শনিবার (৮ জুন) বিকেলে এফবিসিসিআইয়ের মতিঝিল কার্যালয়ে ২০২৪-২৫ অর্থবছরের প্রস্তাবিত জাতীয় বাজেট নিয়ে সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা এফবিসিসিআই সভাপতি।

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে মো. মাহবুবুল আলম বলেন, ‘আমরা সৎ ব্যবসায়ীদের পক্ষে, অসৎ ব্যবসায়ীদের পক্ষে এফবিসিসিআই কোনো অ্যাডভোকেসি কোনোদিন করেনি, করবেও না। এখন প্রশ্ন হচ্ছে ইচ্ছেকৃত কেউ যদি ডিফল্টার (ঋণখেলাপি) হয় সেটা এক জিনিস আর ব্যবসা করতে গিয়ে কেউ যদি ডিফল্টার হয়, সেটা আরেক জিনিস।’

তিনি বলেন, ‘একটা ব্যবসা বা একটা গ্রুপ দাঁড়ানো নট টু ইজি (সহজ নয়)। একটি কর্পোরেট হাউজ হতে মিনিমাম ৫০-৬০ বছর লাগে। হ্যাঁ এখানে হঠাৎ করে ব্যবসা করতে-করতে একসময় তার ব্যবসাতে লস হতে পারে। একটা কোম্পানি বা দুইটা কোম্পানি ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে যায়, তখন আমরা দেখি তার আরেকটা কোম্পানি বন্ধ করে দিল। সেজন্য আমরা অনুরোধ করেছি যে আমার ১০টা কোম্পানি আছে। আমি ব্যবসা করতে গিয়ে একটা কোম্পানি ডিফল্টার হয়ে গেল, ৯টা কোম্পানিকে যেন বাংলাদেশ ব্যাংক টাকা দিয়ে সাহায্য করে বা ব্যবসাটা করতে দেয়।’

এফবিসিসিআই সভাপতি বলেন, ‘আমি মনে করে যে ফলোআপ ইস ভেরি ইম্পরট্যান্ট (অনেক গুরুত্বপূর্ণ)। আপনি যাকে লোন দিচ্ছেন তাকে ফলোআপ করতে হবে, যাতে সে ঋণখেলাপি না হয়। তার ফান্ড ডাইভার্ট (অর্থ স্থানান্তর) করছে কি না, সেটাও আপনাকে ফলোআপ করতে হবে। এগুলো একটি মনিটরিং পলিসিতে আনতে হবে।’

মো. মাহবুবুল আলম বলেন, ‘এ বছর ব্যবসা খারাপ হয়ে গেল, সে যে একেবারেই খারাপ হয়ে গেল; তেমন তো কোনো কথা নেই। সে আবার ঘুরে দাঁড়াতে পারে। একেবারে মুখ ফিরিয়ে নিলে কিন্তু ইন্ডাস্ট্রি একেবারে ক্র্যাশড হয়ে যায়।’

‘এজন্য আমরা মনে করি যে যারা ইচ্ছাকৃত… আমি টাকাটি নিয়ে ডাইভার্ট করে অন্য কিছু করে ফেললাম বা বিদেশে পাঠিয়ে দিলাম, তাদের পক্ষে আমাদের কোনো অ্যাডভোকেসি নেই। আমরা যারা ভালো ব্যবসা করি যাদের রেপুটেশন আছে, ৫০ বছর ব্যবসা করছে হয়ত শেষে গিয়ে সেকেন্ড জেনারেশনের হাতে পড়েছে। সে খারাপ হতে পারে, তাকে আপনি সাহায্য করতে হবে; দেখতে হবে। একেবারে মুখ ফিরিয়ে নেবেন, তাহলে কিন্তু ওই কোম্পানি বা ওই গ্রুপ আর সারভাইভ করবে না।’


error: Content is protected !!