ঢাকা, সোমবার, ২৬শে অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ, ১০ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
ঢাকা, সোমবার, ২৬শে অক্টোবর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ, ১০ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

নিষেধাজ্ঞা’য় ১১ দিন গাড়ী পাড় হতে না পারায় পঁচে গেছে ওপারে দাড়িয়ে থাকা ট্রাকের পেঁয়াজ

বেনাপোল প্রতিনিধি : পেঁয়াজ আমদানিতে ভারতের বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার না হওয়ায় টানা ১১ দিন ধরে বেনাপোল বন্দর দিয়ে পেঁয়াজ আমদানি বন্ধ রয়েছে। ফলে, বেনাপোল বন্দরে প্রবেশের অপেক্ষায় ওপারে ভারতের পেট্রাপোল বন্দর এলাকায় বিভিন্ন বেসরকারি পার্কিং আর সড়কে প্রায় শতাধিক পেঁয়াজ বোঝায় ট্রাক এখনো দাঁড়িয়ে থাকায় পেঁয়াজ পঁচছে। দ্রæত এসব ট্রাক ছাড় করাতে না পারলে বিপুল পরিমাণে ক্ষতির শিকার হবেন ব্যবসায়ীরা।

এদিকে বাংলাদেশি আমদানিকারকরা তাদের ভারতীয় রফতানিকারক প্রতিনিধিদের মাধ্যমে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ে পুরানো এলসির আটকে পড়া পেঁয়াজ ছাড় করণে বার বার আবেদন জানালেও এখন পর্যন্ত কোনো সাড়া মেলেনি। ফলে দেশে পেঁয়াজ আমদানি অনিশ্চিত হয়ে দাঁড়িয়েছে।

বেনাপোল বন্দরের স্থানীয় বাজারে পেঁয়াজ সংকট দেখা দেওয়ায় দাম আবারও বেড়ে চলেছে। বৃহস্পতিবার সকালে পাইকারি বাজারে ৬০ থেকে ৬৫ টাকা আর খুচরা বাজারে তা ৭৫ থেকে ৮০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। ভারত থেকে আমদানিকৃত পেঁয়াজ অর্ধেক নষ্ট হওয়ায় বাজারে দাম বেড়েছে বলে দাবি ব্যবসায়ীদের।

পেয়াজ আমদানিকারক শেখ ট্রেডার্সের প্রোপাইটর শেখ মাহাবুব বলেন, প্রতিবছর পেঁয়াজ নিয়ে লংকা কান্ড হয়। ভারত কখনো উৎপাদন সংকট দেখিয়ে আবার কখনো রফতানি মূল্য তিন গুন বাড়িয়ে আমদানি বন্ধ করতে বাধ্য করে। এক্ষেত্রে সংকট মোকাবেলায় ভারত ছাড়াও বাইরের কিছু দেশের সাথে বাণিজ্যিক সম্পর্ক জোরদার করার প্রয়োজনীয়তা ব্যক্ত করেন এ ব্যবসায়ী।

পেঁয়াজ আমদানিকারক রফিকুল ইসলাম রয়েল বলেন, বেনাপোল বন্দরে প্রবেশের অপেক্ষায় ভারতের পেট্রাপোল বন্দরের ওপারের বিভিন্ন পার্কিংয়ে হেফাজতে তাদের প্রায় শতাধিক ট্রাক পেঁয়াজ নিয়ে দাঁড়িয়ে আছে। অনেক ট্রাকের পেঁয়াজে পচন ধরেছে। নিষেধাজ্ঞার আগেই এসব ট্রাক বন্দর এলাকায় পৌঁছেছিল।

বেনাপোল বন্দরের উপপরিচালক(ট্রাফিক) মামুন কবীর তরফদার জানান, পূর্ব ঘোষণা ছাড়াই সংকট দেখিয়ে গত ১৪ সেপ্টেম্বর থেকে বাংলাদেশে পেঁয়াজ রফতানি বন্ধ করে দেয় ভারত। এ পর্যন্ত কোনো পেঁয়াজের ট্রাক দেয়নি ভারতীয় কর্তৃপক্ষ। দিবে কিনা তাও নিশ্চিত জানাতে পারেনি।

উল্লেখ্য, গত ১৪ সেপ্টেম্বর থেকে ২৩ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ১০ দিনে ভারত থেকে আমদানি হয়েছে ২৫৪৪ ট্রাক বিভিন্ন ধরনের পণ্য। তবে, এসব পণ্যের মধ্যে কোনো পেঁয়াজের ট্রাক ছিলনা। একই সময়ে ভারতে বাংলাদেশি পণ্য রফতানি হয়েছে ১০২৭ ট্রাক পণ্য। তবে, এসব রফতানি পণ্যের মধ্যে ৬৭ ট্রাক ছিল পদ্মার ইলিশ।


error: Content is protected !!