ঢাকা, মঙ্গলবার, ৫ই জুলাই, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ২১শে আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
ঢাকা, মঙ্গলবার, ৫ই জুলাই, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ২১শে আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

গোসাইরহাটে পটল চাষে স্বাবলম্বী শাহাদাৎ হোসেন

গোসাইরহাট (শরীয়তপুর) প্রতিনিধিঃ শরীয়তপুরের গোসাইরহাট উপজেলার ইদিলপুর ইউনিয়নের মহেশ্বরপট্টি গ্রামের দরিদ্র কৃষক শাহাদাত হোসেন (৩৪) পটল চাষ করে স্বাবলম্বী হয়েছেন।

বছর জুড়েই চাহিদা থাকায় এবং অন্য ফসলের তুলনায় লাভ বেশি হওয়ায় বেশি বেশি পটল চাষে ঝুঁকছেন শাহাদাৎ হোসেন। এই সবজির আবাদ বাড়াতে সব ধরনের সহযোগিতা দেওয়ার কথা জানিয়েছে গোসাইরহাট উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর।

 

কৃষক শাহাদাৎ হোসেন জানান, ১৬ শতাংশ জমিতে পরীক্ষামূলকভাবে শুরু করেন পটলের আবাদ। প্রথম বারের তিনি পান সফলতা। এরপর থেকে তিনি নিয়মিত পটল চাষ করে আসছেন। চলতি মৌসুমেও তিনি নিজের ১৯ শতাংশ জমির সঙ্গে আরো ১৬ শতাংশ জমি বারিয়ে ৩০ শতাংশ জমিতে করতে চান পটলের আবাদ।

 

তিনি আরোও জানান, তার বাড়ীর মসজিদের ইমাম হাফেজ মাওলানা আক্তার হোসেন এর কাছ থেকে শুনে পটল চাষের কথা৷ তার বাড়ি যশোর চৌগাছা, কাটিং লতা সংগ্রহ করে তার নিজস্ব ১৬ শতাংশ জমিতে তিনি কাজলা জাতের পটল চাষ করেছেন।

 

জমি তৈরি থেকে শুরু করে, বীজ, সার, মাচা তৈরিসহ সবমিলিয়ে খরচ হয় প্রায় ২০ হাজার টাকা। ১৬ শতাংশ জমি থেকে সপ্তাহের প্রায় প্রতিদিনই আড়াই মণ পটল তুলে বাজারে বিক্রি করছেন। গত চৈত্র মাস থেকে চলতি আষাঢ় মাস পর্যন্ত প্রতি কেজি তিনি ২০ টাকা থেকে সর্বোচ্চ ৪৫ টাকা কেজি দরে পাইকারি দামে পটল বিক্রি করছেন। ফলন ভালো হলে এখান থেকেই সব খরচ বাদ দিয়েও বছর শেষে প্রায় ১লক্ষ টাকা লাভ হবে বলে আশা করেন তিনি।

 

উপজেলা কৃষি অফিসার মো. শাহাবুদ্দিন বলেন, এই প্রথম গোসাইরহাটে ১৬ শতাংশ জমিতে পটল চাষ করে লাভমান হয়েছে শাহাদাৎ হোসেন, তিনি নিজ উদ্দেগে পটল এর কাটিং আনার পরে কৃষি অফিসের পরামর্শ করে তিনি পটল চাষ করে ৮০ হাজার টাকা বিক্রি করেন, আরো ১লক্ষ টাকারমত বিক্রি করতে পারবে আশা করেছেন৷