ঢাকা, মঙ্গলবার, ৫ই জুলাই, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ২১শে আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
ঢাকা, মঙ্গলবার, ৫ই জুলাই, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ২১শে আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

হু হু করে বাড়ছে করোনা, শনাক্তের হার পেরোল পাঁচের ‘নিরাপদ’ সীমা

২৪ ঘণ্টায় দেশে আরও ৩৫৭ জনের শরীরে করোনা শনাক্ত হয়েছে। এর মধ্যে রাজধানী ঢাকাতেই আক্রান্ত হয়েছেন ৩২৮ জন। এ পর্যন্ত মোট শনাক্ত রোগীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৯ লাখ ৫৪ হাজার ৯৯৪ জনে। শনাক্তের হার বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৫ দশমিক ৭৬ শতাংশে। এক দিনের ব্যবধানে শনাক্তের সংখ্যা ও হার দুটোই বেড়েছে।

এ সময়ের মধ্যে করোনায় কারো মৃত্যু হয়নি। ফলে মোট মারা যাওয়ার সংখ্যা ২৯ হাজার ১৩১ জন অপরিবর্তিত আছে।

 

 

বৃহস্পতিবার (১৬ জুন) স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে পাঠানো করোনা বিষয়ক নিয়মিত সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

বেশ কয়েক মাস ধরে দেশে করোনা শনাক্তের হার ছিল ১-এর নিচে। দুই সপ্তাহ ধরে এটি বাড়ছে আশঙ্কাজনক হারে। গত সপ্তাহে ১ থেকে ২-এর মধ্যে থাকলেও সবশেষ ২-৩ দিনে লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে শনাক্তের হার। গতকাল ছিল ৩-এর ঘরে, আজ এটি পেরিয়ে গেল ৫-এর ঘর। বিশেষজ্ঞরা বিভিন্ন সময় বলে আসছেন করোনা শনাক্তের হার ৫-এর নিচে থাকলে সেটাকে ‘নিরাপদ’ সীমা বলা যায়। এর ভিত্তিতেই করোনা প্রতিরোধে বিধি-নিষেধ কতটা কী দেওয়া দরকার তা ঠিক করা হয়।

বৃহস্পতিবারের বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ২৪ ঘণ্টায় করোনা থেকে সুস্থ হয়েছেন ১১৪ জন। এ পর্যন্ত সুস্থ হয়েছেন ১৯ লাখ ৫ হাজার ৬১৮ জন।

২৪ ঘণ্টায় ৬ হাজার ২২৩টি নমুনা সংগ্রহ করা হয়। পরীক্ষা করা হয় ৬ হাজার ২০০টি নমুনা। পরীক্ষার বিপরীতে শনাক্তের হার ৫ দশমিক ৭৬ শতাংশ। মহামারির শুরু থেকে এ পর্যন্ত মোট শনাক্তের হার ১৩ দশমিক ৭৬ শতাংশ।

 

 

২০২০ সালের ৮ মার্চ দেশে প্রথম ৩ জনের দেহে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়। এর ১০ দিন পর ওই বছরের ১৮ মার্চ দেশে এ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে প্রথম একজনের মৃত্যু হয়। ২০২১ সালের ৫ ও ১০ আগস্ট দুদিন সর্বাধিক ২৬৪ জন করে মারা যান।