ঢাকা, রবিবার, ১৬ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ২রা আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
ঢাকা, রবিবার, ১৬ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ২রা আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বাড়ি গিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বীকে মিষ্টি খাওয়ালেন বিজয়ী চেয়ারম্যান

ষষ্ঠ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের দ্বিতীয় ধাপে লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জ উপজেলায় স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা মো. ইমতিয়াজ আরাফাত বিপুল ভোটে প্রথমবারের মতো চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। নির্বাচনে তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ছিলেন উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান দেলোয়ার হোসেন দেওয়ান বাচ্চু।

বৃহস্পতিবার (২৩ মে) সন্ধ্যায় রামগঞ্জ পৌরসভার দেওয়ান বাড়িতে গিয়ে ইমতিয়াজ আরাফাত বিপুল তার প্রতিদ্বন্দ্বী দেলোয়ার হোসেন দেওয়ান বাচ্চুকে মিষ্টি খাওয়ান। একইসঙ্গে তারা একে অপরের গলায় ফুলের মালা পরিয়ে দিয়ে জয়ের আনন্দ উদযাপন করেন। এ সময় ইমতিয়াজ উপজেলা পরিষদের কার্যক্রম পরিচালনায় বাচ্চুর সহযোগিতা চেয়েছেন। ইমতিয়াজ জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. শাহজাহানের ছেলে ও জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক।

জানা গেছে, গত ২১ মে রামগঞ্জ উপজেলায় ভোটগ্রহণ হয়। এতে আনারস প্রতীক নিয়ে ইমতিয়াজ ও মোটরসাইকেল প্রতীক নিয়ে দেওয়ান বাচ্চু প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। তারা ছাড়াও আরও দুইজন চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছেন। এর মধ্যে দেওয়ান বাচ্চুর পক্ষে প্রথম থেকেই লক্ষ্মীপুর-১ আসনের সংসদ সদস্য আনোয়ার হোসেন খান কাজ করেছেন। এক প্রার্থী দিতে অন্যদের নিয়ে সমঝোতা বৈঠক করেন। জনপ্রতিনিধি ও রাজনৈতিক নেতাদের মোবাইলফোন-হোয়াটসঅ্যাপে কল করে ভোট চেয়েছেন। টিআর ও কাবিখা প্রকল্পে লোভ দেখানো হয়েছে বলেও অভিযোগ উঠেছে। এসব বিষয়ে একাধিক লিখিত অভিযোগের ভিত্তিতে প্রথমে রিটার্নিং কর্মকর্তা এমপি আনোয়ার খানকে নির্বাচনী প্রচারণায় অংশ না নিতে অনুরোধ জানিয়ে চিঠি দেন। এরপরও তিনি নির্বাচনী প্রচারণায় অংশ নেন। এ ছাড়া সাবেক এক ইউপি চেয়ারম্যানকে উঠিয়ে এনে মোটরসাইকেলের পক্ষে কাজ করতে প্রভাব দেখানোসহ নির্বাচনী প্রচারণায় অংশ নেওয়ার অভিযোগে রিটার্নিং কর্মকর্তা ১৯ মে রাতে এক চিঠিতে এমপির বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য রামগঞ্জ থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে (ওসি) নির্দেশ দেন। এরপরও ২০ মে রাতে গাড়িবহর নিয়ে উপজেলা ভোলাকোট ইউনিয়নে এমপি মহড়া দিয়েছেন বলে অভিযোগ উঠে। এ সময় আনারস প্রতীকের কর্মীদের হুমকি-ধামকি দেওয়ার অভিযোগও আনা হয়। এসব ঘটনায় গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশিত হয়।

অবশেষে নির্বাচনে ৪৪ হাজার ৮ ভোট পেয়ে ইমতিয়াজ আরাফাত বেসরকারিভাবে রামগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী দেওয়ান বাচ্চু ২৬ হাজার ৬০৯ ভোট পেয়েছেন। প্রথমবার ভোটের মাঠে নেমেই ১৮ হাজার ১ ভোট বেশি পেয়ে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়ায় ইমতিয়াজকে আওয়ামী লীগের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মীরা অভিনন্দন জানিয়েছেন।

dhakapost

রামগঞ্জ উপজেলা পরিষদের নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান ইমতিয়াজ আরাফাত বলেন, আমার বাবার সততা আর একনিষ্ঠতা ও রামগঞ্জবাসীর ভালোবাসায় আমি বিজয় অর্জন করেছি। সবার কাছে আমি চিরকৃতজ্ঞ। আমি এখন রামগঞ্জবাসীর কাছে ঋণী হয়ে গেলাম। রামগঞ্জকে স্মার্ট উপজেলা হিসেবে গড়ে তুলতে সর্বোচ্চ কাজ করবো। উন্নয়নের মাধ্যমে রামগঞ্জবাসীর ঋণ পরিশোধের চেষ্টা করবো।

তবে নির্বাচন নিয়ে কোনো কথা বলতে রাজি হননি দেলোয়ার হোসেন দেওয়ান বাচ্চু।


error: Content is protected !!